সাতক্ষীরায় আ,লীগ নেতার বাড়ির পাশের বাগান থেকে র‌্যাবের অভিযানে অস্ত্রসহ গুলি উদ্ধার

সারাদেশ

সাতক্ষীরার আলিপুরে আওয়ামী লীগ নেতার বাড়ির পাশের বাগান থেকে র‌্যাবের অভিযানে চারটি অস্ত্রসহ গুলি ও ম্যাগজিন উদ্ধার
সঠিক তদন্ত করে সোর্স, অস্ত্রের মালিকসহ ষড়যন্ত্রকারীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের দাবী আ.লীগের

নিখাদ বার্তাকক্ষ: সাতক্ষীরায় র‌্যাবের অভিযানে দেশী তৈরী ২টি ওয়ান শুটার গান, ২টি ৯ এমএম সদৃশ্য বিদেশি পিস্তল, ২৯টি কার্তুজ এবং ৩টি ম্যাগাজিন উদ্ধার করা হয়েছে। রোববার রাত সাড়ে ৩টার দিকে সদর উপজেলার আলিপুর ইউনিয়নের মাহামুদপুর এলাকা থেকে পরিত্যাক্ত অবস্থায় উক্ত অস্ত্র ও গুলি উদ্ধার করা হয় বলে র‌্যাবের এক প্রেসবিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।
এদিকে সাতক্ষীরা সদর উপজেলার আলিপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জিয়াউর ইসলাম জিয়া জানান, ভোর রাতে র‌্যার সদস্যরা আলিপুর ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান খোকনের বাড়িতে অভিযান চালায় এবং তাকে আটক করে। এ সময় তার বাড়ি তল্লাসী করে কিছু না পেয়ে বাড়ি থেকে প্রায় ২০০ গজ দুরে বাগানের বিচলী গাদার ভিতর থেকে অস্ত্র কার্তুজ ও ম্যাগজিন উদ্ধার করে। র‌্যাব সদস্যরা মোস্তাফিজুর রহমান খোকনকে অস্ত্রসহ নিয়ে যাওয়ার সময় আলিপুর চেকপোস্টস্থ মধুর মোড়ে তিনি র‌্যাব সদস্যদের সাথে কথা বলেন। এ সময় আলিপুর ইউনিয়নে ইতোপূর্বে সংঘটিত একই ধরনের বিভিন্ন ঘটনার কথা জানানোর পর এটিও পরিকল্পিত সাজানো ঘটনা হতে পারে জানালে র‌্যাব সদস্যরা উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলেন। ভোর ৫টার দিকে র‌্যাব সদস্যরা মোস্তাফিজুর রহমান খোকনকে জিয়াউল ইসলাম জিয়ার জিম্মায় ছেড়ে দেন।
এদিকে র‌্যাবের প্রেসবিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, সাতক্ষীরা জেলার সদর থানার এলাকায় টহল ডিউটি করাকালীন ১৩ মে তারিখ দিবাগত রাত ২টা ৫৫ মিনিটের সময় আলীপুর বাজারে অবস্থানকালে র‌্যাব-৫ ও র‌্যাব-৬ এর যৌথ গোপন সংবাদের মাধ্যমে তথ্যপ্রাপ্ত হয় যে, সাতক্ষীরা জেলার সদর থানাধীন আলীপুর ইউনিয়নের মাহমুদপুর সাকিনস্থ একটি একতলা বিশিষ্ট পাঁকা বসতঘরের পাশে বাগানের ভিতর পরিত্যক্ত অবস্থায় সন্দেহজনক বস্তু পড়ে আছে। উক্ত সংবাদ প্রাপ্ত হয়ে র‌্যাব-৬ এর টহল টিম সঙ্গীয় ফোর্সসহ একই তারিখ দিবাগত রাত ৩.৩০টায় উক্ত স্থানে পৌঁছাইলে ১টি হলুদ রংয়ের শপিং ব্যাগের মধ্যে রক্ষিত পরিত্যক্ত অবস্থায় দেশীয় তৈরী ২টি ওয়ান শুটার গান সদৃশ পিস্তল, ২টি ৯ এমএম সদৃশ্য বিদেশি পিস্তল, ২৯টি কার্তুজ, ৩টি লোহার তৈরী ম্যাগাজিন জব্দ করে। পরবর্তীতে র‌্যাব-৬, সিপিসি-১, সাতক্ষীরা এর একটি আভিযানিক দল আসামী গ্রেপ্তারের লক্ষ্যে গোয়েন্দা তৎপরতা শুরু করে এবং অভিযান অব্যাহত রাখে।
উদ্ধারকৃত পরিত্যক্ত ২টি ওয়ান শুটার গান সদৃশ পিস্তল, ২টি ৯ এম এম সদৃশ বিদেশি পিস্তল, ২৯টি কার্তুজ এবং ৩টি ম্যাগাজিন জিডি মূলে সাতক্ষীরা জেলার সদর থানায় হস্তান্তর করা হয়।
সাতক্ষীরা আলিপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মহিবুর রহমান ময়ুর জানান, গত ২৯ এপ্রিল ২০২৪ তারিখে অনুষ্ঠিত আলিপুর ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনের পর থেকে বিজয়ী চেয়ারম্যান বিএনপি নেতা আব্দুর রউফের সন্ত্রাসীরা মোস্তাফিজুর রহমান খোকনসহ আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে ঢালাও ভাবে বিভিন্ন মিথ্যা অভিযোগ করে আসছে। ইতোপূর্বে ২০০৯ সালে ১৩ এপ্রিল বিকাল ৫টার দিকে রউফ চেয়ারম্যানের সন্ত্রাসীরা মোস্তাফিজুর রহমান খোকনকে মাহামুদপুর হাটখোলায় বেদমভাবে মারপিট করে এবং আলিপুর ইউনিয়ন পরিষদে তুলে নিয়ে যায়। সেখানেও বেদম মারপিটের পর গুরুতর আহত অবস্থায় সাতক্ষীরা সদর থানার পুলিশ তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে। সে ঘটনায় রউফের ১০ জন সহযোগীর বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের করা হয়। এ মামলায় রউফ আরো ক্ষিপ্ত হয়। একই বছর ১৯ জুলাই র‌্যাব সদস্যরা মোস্তাফিজুর রহমান খোকনকে আটক করে এবং তার ঘেরের পানির মধ্য হতে দুটি অস্ত্র উদ্ধারের পর তার বিরুদ্ধে থানায় অস্ত্র আইনে মামলা করে। সে মামলায় প্রায় ২০ মাস কারাভোগের পর বিচারে খোকন খালাস পায়।
মহিবুর রহমান ময়ুর জানান, ইতোপূর্বে ২০১০ সালের ২২ মে আলিপুর ইউনিয়নের পাশ্ববর্তী নাথুয়ারডাঙ্গা গ্রামের আওয়ামী লীগ নেতা সফিকুল ইসলামের বাড়িতে র‌্যাব সদস্যরা অভিযান চালায়। সেই অভিযানের সময় সফিকুলের বাড়ির গ্রিলের ফাক দিয়ে ভিতরে অস্ত্র ফেলা এবং সেই অস্ত্র উদ্ধারের ঘটনায় এলাকাবাসী র‌্যাব সদস্যদের ঘেরাও করে। প্রায় ৬ ঘন্টা র‌্যাব সদস্যরা ঘেরাও থাকার পর পুলিশ তাদেরকে উদ্ধার করে। এ ঘটনায় এলিট ফোর্স র‌্যাবের ভাবমুর্তির পাশাপাশি সরকারের ভাবমুর্তি ক্ষুন্ন হয়। পরবর্তীতে র‌্যাবসহ সরকারের বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার তদন্তে প্রকৃত ঘটনা উৎঘাটিত হয় এবং ঐ বছর ১৪ জুলাই র‌্যাবের ডিএডি আমির হোসেন বাদী হয়ে আলিপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুর রউফ, তার ছেলে আব্দুস সেলিম, র‌্যাবের সোর্স আমিরুলসহ তাদের ৫জন সহযোগীর নামে মামলা করে।
মহিবুর রহমান ময়ুর আরো জানান, আলিপুর ইউনিয়নে গত কয়েক দশক বিএনপি-জামায়াতের নেতৃত্বে আব্দুর রউফ ও তার পরিবারের সদস্যরা সন্ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে রেখেছে। একটানা ১৫ বছর ক্ষমতায় থেকেও এখানকার আওয়ামী লীগের নেতা কর্মীরা চরম নির্যাতনের শিকার হয়ে আসছে। আমরা তার কোন প্রতিকার পাচ্ছি না।
সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ নজরুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন সাতক্ষীরা সদরের আলিপুর ইউনিয়নে গত কয়েক দশক সন্ত্রাসের রাজত্ব চলছে। গত ২৯ এপ্রিল ২০২৪ তারিখে ইউনিয়নটির নির্বাচনে বিএনপি নেতা আব্দুর রউফ নির্বাচিত হয়েছেন। এরপর থেকে গত কয়েকদিন যাবৎ সরকারের ভাবমুর্তি নষ্ঠ করতে আমরা সেখানে নানামুখি অপতৎরতা লক্ষ্য করছি। পূর্বের মতই এলিট ফোর্স র‌্যাবসহ সরকারের ভাবমুর্তি নষ্ঠ করতে আবারো অস্ত্র নাটক সাজানো হয়েছে। আমিসহ সাতক্ষীরা সদর আসনের সংসদ সদস্য মোঃ আশরাফুজ্জামান আশু, সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য লায়লা পারভীন সেঁজুতি র‌্যাবের সাথে কথা বলেছি এবং এটিঘটনার সঠিক তদন্ত করে প্রকৃত অস্ত্রের মালিকসহ ষড়যন্ত্রকারীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বলেছি।
এব্যাপারে র‌্যার-৬ সাতক্ষীরা কোম্পানী কমান্ডার এএসপি নাজমুল হকের সাথে সংবাদিকরা যোগাযোগ করলে র‌্যাবের পাঠানো প্রেসবিজ্ঞপ্তির বাইরে আর কোন কথা বলতে রাজি হননি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.